ত্বকে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহারের নিয়ম

ভিটামিন ই ক্যাপসুল খাওয়ার পাশাপাশি সরাসরি ত্বকে ব্যবহার করা যায়। বলা হয় মাথা থেকে পায়ের তালু সব জায়গাতেই ব্যবহারে করা যায় এই তেল। এটি আপনার চুলে, মুখে, হাত-পাসহ হাতের নখের যত্নেও ব্যবহার করতে পারেন। তবে কীভাবে এটি ব্যবহার করবেন তা অনেকেই জানেন না। বিভিন্নভাবে এটি ব্যবহার করা যায়। তবে জেনে নিন ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহারের কয়েকটি উপায়-

নখের যত্নে: নখের যত্নে ভিটামিন ই ক্যাপসুল খুবই কার্যকরী। যাদের নখ অল্পতেই ভেঙে যায় তারা এটি ব্যবহার করতে পারেন। একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুলের তেল বের করে নিন। এবার এটি আপনার নখ এবং এর চারপাশের ত্বকে ভালোভাবে ম্যাসাজ করে নিন। এটি নখের ভেঙে যাওয়া রোধ করে নখ মসৃণ ও সুন্দর করে। এছাড়াও নখ দ্রুত বৃদ্ধি করে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এটি ব্যবহার করুন। সকালে হালকা গরম পানিতে হাত ধুয়ে নিন।

নাইট ক্রিম হিসেবে: ময়েশ্চারাইজিংয়ের জন্য ভিটামিন ই ক্যাপসুল খুবই উপকারী। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে আপনার পরিষ্কার মুখে এই তেলটা লাগিয়ে নিন। কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করুন। সকালে হালকা গরম পানিতে মুখ ধুয়ে নিন। এটি আপনার কেমিকেলযুক্ত নাইট ক্রিমের দুর্দান্ত বিকল্প হতে পারে। এছাড়াও সারারাত এটি আপনার ত্বকে সিরামের কাজ করবে। এটি ঘুমাতে যাওয়ার কমপক্ষে আধা ঘণ্টা আগে লাগাতে হবে।

রোদে পোড়া দাগ দূর করতে: সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি থেকে ত্বককে বাঁচাতে কতই না সানস্ক্রিন আর ক্রিম লাগিয়ে থাকেন। তারপরও রোদে পোড়া দাগ ত্বকে রয়েই যায়! বিশেষ করে হাত পায়ে। ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন ভিটামিন ই ক্যাপসুল তেল। এটি আপনার ব্যবহারের সানস্ক্রিন বা ক্রিমের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এবার বাইরে যাওয়ার আগে এটি ব্যবহার করুন। ময়েশ্চারাজারের পাশাপাশি এটি আপনার ত্বককে রোদে পোড়া থেকে রক্ষা করবে।

চুলের বৃদ্ধিতে: চুলের সব সমস্যার এক সেরা দাওয়াই এই ভিটামিন ই ক্যাপসুল। আপনার প্রতিদিনের ব্যবহারের তেলের সঙ্গে দুই থেকে তিনটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল তেল মিশিয়ে নিন। মাথার ত্বকসহ চুলে লাগিয়ে নিন। দুই ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে নিন। এটি আপনার চুল পড়া রোধ করবে। সেই সঙ্গে দ্রুত চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। সপ্তাহে অন্তত দুইদিন এটি ব্যবহার করুন।

ব্যবহারের আগে অবশ্যই আপনি একজন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন। আপনার ত্বকের ধরণ ও বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী এটি ব্যবহারের মাত্রা কম বা বেশি হতে পারে।

About admin

Check Also

ইফতারে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন

রোজার গুরুত্বপূর্ণ দু’টি অংশ হলো সেহরি ও ইফতার। সেহরি খেয়ে রোজা রাখা এবং ইফতার দিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *